Trending

Friday, 10 May 2019

অভিশপ্ত দ্বীপ বাল্ট্রা




পৃথিবীতে এমন অনেক রহস্য লুকানো আছে যার সমাধান এখনো হয় নি। এমন কিছু কে আছে যাকে দূর থেকে দেখতে যতো সুন্দর কাছে গেলে ততোই ভয়ানক, এমন এক দ্বীপ এর পরিচয় আজ দেবো। দক্ষিণ আমেরিকার ইকুয়েডর এ অবস্থি ১৩ টি দ্বীপের সমষ্টি নাম গালাপাগোস আইল্যান্ডস। এই গালাপাগোসের ১৩ টি দ্বীপের একটি হলো বাল্ট্রা। দ্বীপপুঞ্জের বাকি ১২ টি দ্বীপে মানুষ থাকলেও বাল্ট্রা সম্পূর্ণ নির্জন মানুষ তো দূরের কথা এখানে কোনোরকম পশু পাখি ও নেই। কিন্তু একসময় এই দ্বীপ জুড়ে বিরাজ করতো মানুষ কিন্তু কি এমন হলো যে আজ সুন্দর এই দ্বীপে সম্পূর্ণ শশ্মানের নিস্তব্ধতা বিরাজ করছে। এর পিছনে লুকানো ইতিহাস টা জেনে নিই।

বাল্ট্রা দ্বীপে আগে জনবসতি ছিলো এখানকার মানুষরা প্রধানত মৎসজীবি ছিলেন। এক সময়ে এখানে মহামারি লাগে গ্রামের পর গ্রাম উজার হয়ে যায় অধিকাংশ মানুষ মারা যায় ও বাকি জনেরা এই স্থান ত্যাগ করে এই দ্বীপ কে অভিশপ্ত ঘোষণা করে। তারপর এখানে আসে না কেউ। গালাপাগোসের অন্যান্য দ্বীপ গুলোতে প্রচুর বৃষ্টিপাত হলেও এখানে আজ পর্যন্ত একফোটা বৃষ্টিও হয় নি যেন একটি নিরপত্তা বেষ্টনী ঘিরে রেখেছে সম্পূর্ণ দ্বীপ টিকে। এখানের আবহাওয়া অত্যন্ত মনোরম ও সুন্দর প্রাকৃতিক দৃশ্য দেখা যায়।

বাল্ট্রার রহস্য সর্বপ্রথম উদ্ভাবন করেন আমেরিকান সেনাবাহিনীর জেনারেল স্যার ফ্রান্সিস ওয়াগনর। দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধ এর সময় যুক্তরাষ্ট্র এখানে অনেক গুলি ঘাটি তৈরি করলে ফ্রান্সিস ওয়াগনর এখানে আসেন ও দ্বীপ এর রহস্য উদ্ভাবন করেন। তিনি পরীক্ষা করে দেখেন এই দ্বীপ এর পাশ দিয়ে প্রাণী রা গেলেও এখানে কেউ আসে না এমন কি পাখি ও উড়তে দেখা যায় নি দ্বীপ এর উপর দিয়ে। তিনি আরও দেখেন যে কম্পাস এখানে আসলে কাজ করা বন্ধ করে দেয়। এই দ্বীপ কে নিয়ে তিনি বিস্তর গবেষণা চালান কিন্তু কোনো সিদ্ধান্তে উপনীত হতে পারেন নি।

পার্শ্ববর্তী অঞ্চলের বাসিন্দা দের দাবী দ্বীপ টি অভিশপ্ত। আবার অনেকে মনে করেন এখানে দ্বীপ টি নির্জন থাকার কারণে এলিয়ান বা ভিন জগৎের বাসিন্দারা এটিকে নিজেদের অবাধ আবাস স্থলে পরিণত করেছে। এখানে আসলে সাধারণ মানুষ জন ও অন্যরকম আচরণ শুরু করে তাদের মতে এই দ্বীপ মানুষ দের নিজের কাছে আকৃষ্ঠ করে এখান থেকে চলে আসলেও এখানকার মোহ থেকে যায় অনেক দিন।

No comments:

Post a comment