Trending

Thursday, 20 June 2019

চরম বিক্ষোভে সামিল রবীন্দ্রভারতীর শিক্ষকেরা



রবীন্দ্রভারতী বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষকেরা এবার বিক্ষোভে নামলেন। জাতি বিদ্বেষ মূলক কটুক্তি নিয়ে উপাচার্যকে চূড়ান্ত হুঁশিয়ারি দিলেন বিক্ষোভরত শিক্ষকেরা।বুধবার তারা জানিয়ে দেন 24 ঘন্টার মধ্যে অভিযুক্ত দুজন ছাত্র নেতা কে সাসপেন্ড না করলে তারা মুখ্যমন্ত্রীর দ্বারস্থ হবেন। এই ঘটনার পর সেদিন আলোচনায় বসেন শিক্ষকেরা। যথারীতি সেদিনকেও অভিযুক্ত ছাত্র নেতা বিশ্বজিৎ দে ফুল দিয়ে শিক্ষকদের কাছে ক্ষমা চেয়ে নেন ।কিন্তু শিক্ষকরা জানান বারবার দোষ করে ক্ষমা চাইলে হবে না। তাকে সাসপেন্ড করতে হবে।

গতকাল শিক্ষামন্ত্রী রবীন্দ্রভারতী ক্যাম্পাসে এসে শিক্ষকদের সঙ্গে এই নিয়ে কথা বলেন। উপাচার্যকে গোটা বিষয়টি জানানো হয়েছে। বিক্ষোভরত শিক্ষার্থীরা চেয়ে ছিলেন উপাচার্য সংবাদমাধ্যমের কাছে যে কথা বলেছেন তা লিখিত ভাবে শিক্ষকদের জানানো হোক। তবেই তারা বৈঠকে যোগ দেবেন ।কিন্তু সন্ধ্যে ছ'টা পর্যন্ত তাদের কাছে কোন চিঠি আসেনি।

বৈঠক শুরুর কিছুক্ষণ আগে তাদের কাছে একটি চিঠি আসে ।কিন্তু বিক্ষোভরত শিক্ষকেরা যে পদত্যাগ করতে চাইছেন এমন কোন উল্লেখ চিঠিতে ছিল না। এই নিয়ে উপাচার্য কে জানানো হলে তিনি কোনো মন্তব্য করেননি। বিষয়টি শিক্ষা মন্ত্রী কে জানানো হয়, যদিও তিনি আগে থেকেই বিষয়টি সম্পর্কে অবগত ছিলেন। শিক্ষামন্ত্রী সকলকে অপেক্ষা করতে বলেন এবং ঘটনাটি খতিয়ে দেখার আশ্বাস দেন। কিন্তু শিক্ষকদের দাবি বিশ্বজিৎ দে  দিনের পর দিন তার অপরাধের মাত্রা বাড়িয়ে চলেছে। সে একের পর এক শিক্ষকদের হেনস্তা করছে। তারপর দলের চাপে এসে ক্ষমা চেয়ে নিচ্ছে।এদিকে বিশ্বজিৎ দে কে বিষয়ে প্রশ্ন করা হলে তিনি বলেন 'শিক্ষকরা এমন দাবি করতেই পারেন। তাতে আমার কিছু করার নেই।'

রবীন্দ্রভারতী বিশ্ববিদ্যালয় ভূগোল বিভাগের ভারপ্রাপ্ত বিভাগীয় প্রধান সরস্বতী কেরকেটা কে জাত তুলে অপমান করা হয়। এ ঘটনা জানাজানি হতেই বিশ্ববিদ্যালয় চত্বর উত্তপ্ত হয়ে ওঠে। বিশ্ববিদ্যালয় চারজন বিভাগীয় প্রধান একসঙ্গে পদত্যাগপত্র জমা দেন। শিক্ষকদের আশঙ্কা এই ঘটনার পিছনে জাতিগত বিদ্বেষ কাজ করছে। তারা কালো ব্যাজ পড়ে উপাচার্যের কাছে যান। রবীন্দ্রনাথের মূর্তির পাদদেশে দাঁড়িয়ে বেশ কিছুক্ষণ প্ল্যাকার্ড ও পোস্টার হাতে প্রতিবাদ জানান।বিষয়টি শিক্ষা মন্ত্রী পর্যন্ত গড়িয়েছে শিক্ষামন্ত্রী সিদ্ধান্তের ওপরে এখন পুরো বিষয়টি নির্ভর করছে। 

No comments:

Post a comment