Trending

Saturday, 15 June 2019

মুখ্যমন্ত্রীকে রাজভবনে তলব রাজ্যপালের


জুনিয়র ডাক্তারদের লাগাতার ধর্মঘটের জেরে চূড়ান্ত ভাবে ব্যাহত হচ্ছে রাজ্যে স্বাস্থ্য পরিষেবা। আউটডোর এবং এমার্জেন্সি থেকে ফিরে যাচ্ছেন মুমূর্ষু রোগীরা। ইতিমধ্যে গণ ইস্তফা দিয়েছেন প্রচুর সিনিয়ার এবং জুনিয়র ডাক্তাররা। রাজ্যের চিকিৎসার এই সংকটময় পরিস্থিতিতে দাঁড়িয়ে উদ্বিগ্ন রাজ্যপাল রাজভবনে ডেকে পাঠালেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়কে।

ভোট এবং ভোট পরবর্তী হিংসার ঘটনা নিয়ে রাজ্যপালের সঙ্গে মুখ্যমন্ত্রীর চাপানউতোর চলছে। তাই রাজ্যপালের ডাকে সাড়া দিয়ে মুখ্যমন্ত্রী আদৌ যাবেন কিনা তাই নিয়ে জল্পনা চলছে। হয়তো মুখ্যমন্ত্রী নিজে না গিয়ে কোনো প্রতিনিধি পাঠাতে পারেন। তবে রাজ্যপাল শুধু মুখ্যমন্ত্রীর সঙ্গেই কথা বলতে চান।

শুক্রবার আহত পরিবহ মুখার্জিকে দেখতে এসে রাজ্যপাল কেশরীনাথ ত্রিপাঠী জানিয়েছেন" মুখ্যমন্ত্রীর সঙ্গে কথা বলার চেষ্টা করছি। এখনো অবধি তার দিক থেকে কোন সারা পাই নি। তিনি আসলে তার সঙ্গে আলোচনায় বসবো।"
এদিকে রাজ্যে চিকিৎসা পরিস্থিতির সমাধান সূত্র খুঁজতে মুখ্যমন্ত্রী নবান্নে ডেকে পাঠিয়েছিলেন অলকেন্দু ঘোষ, সুকুমার মুখোপাধ্যায়, এম এন সাহা, অভিজিৎ চৌধুরীর মতো বিশিষ্ট চিকিৎসকদের।

এদিকে আবার  আন্দোলনরত চিকিৎসকদের সঙ্গে মিছিলে হেঁটেছিল অপর্ণা সেন ,কৌশিক সেন, সুজাত ভদ্র ,অনুপম রায়, বিনায়ক সেন প্রমুখ  বুদ্ধিজীবীরা। জয়েন্ট ডক্টরস প্লাটফর্ম এর তরফ থেকে এনআরএস থেকে কলকাতা ন্যাশনাল মেডিকেল কলেজ অব্দি মিছিল করা হয়। চিকিৎসকদের নিরাপত্তা সুনিশ্চিত করার দাবিতে সকলেই এককাট্টা। গোটা দেশের বিভিন্ন প্রান্তে চলছে প্রতিবাদ মিছিল।

চিকিৎসকদের তরফের ছয় দফা দাবি পেশ করা হয়েছে। এগুলি হল: মুখ্যমন্ত্রীকে ক্ষমা চাইতে হবে। মুখ্যমন্ত্রী বলেছেন আমরা পদবী দেখে চিকিৎসা করি। তাকে সেই বক্তব্য প্রত্যাহার করতে হবে। তাকে এসে দেখা করতে হবে, তারপর আলোচনায় বসা। আহত পরিবহ কে দেখতে যেতে হবে। মুখ্যমন্ত্রী না এলে আন্দোলন উঠবে না। এই দাবি জানানো হয়েছে সমস্ত চিকিৎসকদের তরফ থেকে।
এখন এটাই দেখার রাজ্যপালের সঙ্গে মুখ্যমন্ত্রী আলোচনায় কোনো সমাধান সূত্র বেরিয়ে আসে কিনা। 

No comments:

Post a comment