Trending

Saturday, 1 June 2019

শরীরের পক্ষে মারাত্মক সোডা ড্রিঙ্কস





যে কোনো অনুষ্ঠান হোক বা গেট-টুগেদার, পুজো হোক বা পার্টি, যে জিনিসটি না হলে সমস্ত মজাই মাঠে মারা যায় তা হল সোডা ড্রিঙ্কস। কিন্তু সোডায় থাকা মাত্র কয়েকটা জিনিস চূড়ান্ত ক্ষতি করছে আমাদের শরীরের, তা জানেন কি? সোডা ড্রিঙ্কসের দারুণ মিষ্টিভাব আনতে সোডাতে মেশানো হয় ১৭ চামচ মত সুগার। যে সে সুগার নয়, এই সুগারে গ্লুকোজ আর ফ্রুক্টোজ দুটোই থাকে। তাছাড়া সোডা ড্রিঙ্কসে দ্রবীভূত থাকে কয়েকটি অ্যাসিডও যা না থাকলে সোডা ড্রিঙ্কস খাওয়ায় কোনও মজাই নেই। এই সুগার আর অ্যাসিডগুলোই আমাদের শরীরে ঢুকিয়ে দিচ্ছে নানারকমের রোগ।


বিশেষজ্ঞদের মতে, অধিকাংশ ক্ষেত্রেই ওবেসিটির মত রোগের পিছনে থাকে অত্যাধিক পরিমাণে সোডা জাতীয় ড্রিঙ্কস খাওয়ার প্রবণতা। এছাড়াও হার্ট অ্যাটাকের জন্য দায়ী অন্যান্য কোলেস্টেরলের মধ্যে এলডিএল কোলেস্টেরলের পরিমাণ বাড়িয়ে দেয় সোডার সুক্রোজ ও গ্লুকোজ। এলডিএল কোলেস্টেরল, ট্রাইগ্লিসারাইড মিলেই ব্লকেজ তৈরি করে হৃৎপিণ্ডে।গবেষণায় দেখা গেছে, সোডা ড্রিঙ্কস পানের ফলে কিডনির কার্যক্ষমতা অনেকটা কমে গেছে। ফলে কিডনির জন্যও এটি মোটেই সুখবর নয়।‌সুক্রোজ ও গ্লুকোজ লিভারে অতিরিক্ত পরিমাণে প্রবেশ করতে থাকলে লিভার সুক্রোজ ভেঙে ফ্যাট উৎপন্ন করতে থাকে।এই ফ্যাট যেমন লিভারের কার্যক্ষমতা কমিয়ে দেয় দিন দিন , তেমনই হয়ে ফ্যাটি লিভারের কারণ।সোডার মধ্যে সুগার ছাড়াও থাকে  ফসফোরিক অ্যাসিড ও কার্বনিক অ্যাসিড।যা  দাঁতের সংস্পর্শে এসে দাঁতের এনামেলকে ক্ষইয়ে দেয়। ফলে দাঁত দুর্বল হয়ে যেতে থাকে।বিদেশের একাধিক গবেষণায় দেখা গেছে প্যানক্রিয়াটিক ক্যান্সারের পিছনে মূল করণ হল এই সোডা ড্রিঙ্কস। শুধু তাই নয়, মহিলাদের শরীরে জরায়ুর ক্যান্সারেও এর প্রভাব রয়েছে।


No comments:

Post a comment