Trending

Thursday, 11 July 2019

সংবাদ মাধ্যমের প্রবেশাধিকার নিষিদ্ধ হলো অর্থমন্ত্রকে



প্রত্যেক বছর কেন্দ্রীয় বাজেট পেশ এর আগে সাময়িকভাবে সংবাদমাধ্যমকে অর্থমন্ত্রকে প্রবেশের ক্ষেত্রে নিষেধাজ্ঞা দেওয়া হয়। আবার বাজেট পেশ এর পর সে নিষেধাজ্ঞা উঠে যায়। কিন্তু এবার ঘটনা টা কিছুটা অন্যরকম ।কেন্দ্রীয় বাজেট পেশ এর পরেও অর্থ মন্ত্রকে নিষেধাজ্ঞা জারি রাখল প্রশাসন। আগাম অনুমতি ছাড়া এখন থেকে আর নর্থ ব্লক এ প্রবেশাধিকার মিলবে না সাংবাদিকদের। এমনকি অ্যাক্রেডিটেট (সরকার অনুমোদিত সাংবাদিক) রাও এই নিষেধাজ্ঞার আওতায় থাকবেন। এতদিন অব্দি সাউথ ব্লক অর্থাৎ প্রতিরক্ষা দপ্তর এবং প্রধানমন্ত্রীর দপ্তরে সাংবাদিকদের প্রবেশাধিকারের ক্ষেত্রে নিষেধাজ্ঞা ছিল। কিন্তু অর্থ মন্ত্রকের তেমন কোনো কড়াকড়ি ছিল না। শনিবার বাজেট পেশ এর পরেই এই নতুন নিষেধাজ্ঞার ব্যাপারে সংবাদ মাধ্যমের প্রতিনিধিরা অর্থমন্ত্রী নির্মলা সীতারামন এর সঙ্গে বৈঠকে বসেন। বৈঠকে আলোচিত বিষয় গুলি নির্মালা সিতারামান "অফ দ্য রেকর্ড" রাখার কথা জানান। 

সাংবাদিকরা নিজেদের কাজ করলেও মঙ্গলবার নির্মালা সিতারামান এর দপ্তর থেকে টুইট করে জানানো হয়, আগাম অনুমতি ছাড়া কোনো সাংবাদিক অর্থমন্ত্রকে প্রবেশ করতে পারবেন না। সরকারি প্রেস ইনফরমেশন বুরো অ্যাক্রেডিটেশন প্রাপ্ত সাংবাদিকরাও প্রবেশাধিকার পাবেন না। টুইটে আরো জানানো হয় যে, সরকারি কর্তা ব্যক্তিদের সঙ্গে দেখা করার পদ্ধতি সহজ করতে এবং সাংবাদিকদের হয়রানি রুখতে এই নতুন পদক্ষেপ।

এই সরকারি পদক্ষেপের কার্যত ক্ষুব্দ সংবাদ মাধ্যমের প্রতিনিধিরা। তারা বুধবার প্রেস ক্লাব অফ ইন্ডিয়া মিলিত হন। সেখানে আলোচনার পর সিদ্ধান্ত নেয়া হয় সাংবাদিকদের একাধিক সংগঠন থেকে বিষয়টি প্রেস কাউন্সিল অফ ইন্ডিয়ার নজরে আনা হবে। এবং অর্থমন্ত্রী কে চিঠি দিয়ে সিদ্ধান্ত পরিবর্তনের আবেদন জানানো হবে। যদি এতেও কাজ না হয় তাহলে সাংবাদিকরা অন্যপথ দেখবেন ।প্রতি বছর বাজেট পেশের পর অর্থমন্ত্রী সাংবাদিকদের নৈশ ভোজের ব্যবস্থা করেন। এবার সাংবাদিকরা তা বয়কট করবেন বলে ঠিক করেছেন।

অন্যদিকে রাজ্যসভার 16 টি দল অধ্যক্ষা ভেঙ্কাইয়া নাইডু কে সংবাদমাধ্যমের স্বাধীনতার বিষয় নিয়ে আলোচনার জন্য একটি নোটিশ পাঠিয়েছে। এনসিপি নেতা শারদ পাওয়ার নোটিসের প্রথম স্বাক্ষরকারী। এই নোটিশ এ স্বাক্ষর করেছেন বিজেপি নেতা সুব্রহ্মণ্যম স্বামী।

No comments:

Post a comment