Trending

Wednesday, 3 July 2019

ইভটিজিং এর কারণে ব্যাহত পঠন পাঠন



স্কুল, কলেজ, বিভিন্ন শিক্ষা ক্ষেত্রে ইভটিজিং একটি বড় সমস্যা। অনেক সময় ইভটিজিং এর  কারণে ছাত্র-ছাত্রীদের স্বাভাবিক পড়াশোনার পরিবেশ নষ্ট হয়। তবে এবার এক অভিনব পদক্ষেপ নিল স্কুল কর্তৃপক্ষ ইভটিজিং বন্ধ করার জন্য।

মালদহের হাবিবপুর বুলবুলচন্ডী গিরিজা সুন্দরী বিদ্যাপীঠ কর্তৃপক্ষ সিদ্ধান্ত নিয়েছে ইভটিজিং বন্ধ করার জন্য সপ্তাহে তিন দিন ক্লাস করবে ছাত্ররা ।বাকি তিন দিন ক্লাস করবে ছাত্রীরা। এমন কি নতুন নিয়ম বহাল করে তাদের পঠন পাঠন ও চালু হয়ে গেছে ওই স্কুলে।
স্কুল কর্তৃপক্ষের দাবি ইভটিজিং রুখতে নয়া উদ্যোগ নিয়েছেন তারা।  চলতি মাসে বেশ কয়েকটি আপত্তিকর ঘটনার শিকার হয় এই স্কুলের ছাত্রীরা। স্কুল ক্যাম্পাস এমনকি ক্লাসরুমে বহিরাগত ছাত্রদের আটকানো যায়নি। বিভিন্ন ভাবে তারা ছাত্রীদের উত্ত্যক্ত করছে।

স্কুল কর্তৃপক্ষ বিভিন্নভাবে চেষ্টা করেও আটকাতে পারেনি ।তাই একাদশ ও দ্বাদশ শ্রেণির ছেলে-মেয়েদের জন্য নতুন নির্দেশিকা জারি করা হয়েছে। সেই অনুযায়ী ক্লাস ও  শুরু হয়েছে। তবে এই বিষয়টি সামনে আসার পর থেকেই শিক্ষা দপ্তর থেকে শুরু করে জেলা শিক্ষা মহলেও শোরগোল পড়ে যায়। মালদা জেলার বিদ্যালয় পরিদর্শক তাপস কুমার বিশ্বাস জানান ছাত্ররা সপ্তাহে মাত্র তিন দিন ক্লাস করবে। বাকি দিন ছুটি কাটাবে এমন কোন সিদ্ধান্ত স্কুল কর্তৃপক্ষ নিতে পারে না। আর এই সিদ্ধান্ত নেওয়ার আগে স্কুল কর্তৃপক্ষ আমাকে কিছুই জানায়নি ।আমি বিষয়টি খতিয়ে দেখে আইনি ব্যবস্থা নিচ্ছি। জানা গেছে যে এই বিদ্যালয়টি পঞ্চম থেকে দশম শ্রেণী পর্যন্ত শুধু ছাত্রদের জন্য। একাদশ ও দ্বাদশ শ্রেণীতে ছাত্রীরা এখানে কো এড সিস্টেমে পড়তে আসে।

এ বিষয়ে স্কুলের সহকারী প্রধান শিক্ষক রবীন্দ্রনাথ পান্ডে বলেন জায়গা কমের দোহাই দিয়ে অনেক স্কুলে তিন দিন করে ক্লাস হচ্ছে। জেলা শিক্ষা পরিদর্শক তো তাদের বিরুদ্ধে কোনো ব্যবস্থা নিচ্ছে না। ইভটিজিং রক্ষার জন্য বাধ্য হয়ে আমরা অস্থায়ীভাবে এই সিদ্ধান্ত নিয়েছি ।আর আমাদের স্কুলের একাদশ ও দ্বাদশ শ্রেণির ছাত্রছাত্রীরা সিদ্ধান্ত মেনে নিয়েছে। এমনকি অভিভাবক মহল থেকেও কোনো অভিযোগ জমা পড়েনি ।তাই আমরা আপাতত এই সিদ্ধান্ত বহাল রাখবো।

তৃণমূলের শিক্ষক সংগঠনের মালদহের আহ্বয়ক উতীয় পান্ডে বলেন স্কুল কর্তৃপক্ষ এরকম করে সিদ্ধান্ত নিতে পারে কিনা ,সে বিষয়ে বিতর্ক থাকতেই পারে ।তবে স্কুলের পরিবেশ সুস্থ স্বাভাবিক রাখতে আলোচনার মাধ্যমে বিষয়টি বিবেচনা করে দেখা যেতে পারে।


No comments:

Post a comment