Trending

Friday, 26 July 2019

বন্যা পরিস্থিতি দেখতে গিয়ে বিক্ষোভের মুখে জেলাশাসক


বন্যা পরিস্থিতি দেখতে গিয়ে বিক্ষোভের মুখে পড়লেন জেলা শাসক এবং জেলা সভাধিপতি। ঘটনাটি ঘটেছে মালদার রতুয়া ব্লকে। গ্রামবাসীরা জানায় প্রশাসনের অবহেলার কারণেই বাঁধ ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছে এবং গ্রাম বন্যায় প্লাবিত হচ্ছে। গত কয়েকদিন আগে রতুয়া 1 ব্লকের কালাহার সূর্যপুর বাঁধ ফুলাহারের প্লাবনে তলিয়ে গিয়েছে। 200 মিটারের বেশী বাঁধ ভেঙে প্লাবিত হয়েছে গোটা এলাকা। ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে বিয়ের পর বিঘা জমি, আমবাগান। জল ঢুকছে গ্রামে, আতঙ্কে গ্রামবাসীরা ঘরবাড়ি ছেড়ে পালাচ্ছেন।

গ্রামবাসীদের অভিযোগ শুকনো মরসুমে বাঁধ ঠিক করার কোন কাজ করা হয় না। প্রত্যেক বছর ঠিক বর্ষার আগে কাজ শুরু হয়। কিন্তু তখন ঠিক ভাবে কাজ করা যায় না বৃষ্টির জন্য ।অথচ কোটি কোটি টাকা নষ্ট হয়। এবারেও সেচ দপ্তর বর্ষার ঠিক আগে সূর্যপুর বাঁধ ভাঙ্গন এর কাজ শুরু করে, আবার বন্ধ করে দেয়। ফুলাহারের ভাঙ্গনে গ্রামে জল ঢুকে পড়ে। বন্যা পরিস্থিতি দেখতে এদিন গ্রামে যান জেলাশাসক কৌশিক ভট্টাচার্য এবং সভাধিপতির গৌর চন্দ্র মন্ডল। গ্রামবাসীরা তাদের ঘিরে বিক্ষোভ দেখাতে থাকেন পরে পুলিশ এবং স্থানীয় নেতারা তাদের উদ্ধার করে।পিড়িত গ্রামবাসীদের দ্রুত সাহায্যের আশ্বাস দেওয়া হয়।

উত্তরবঙ্গ জুড়ে ভারী বর্ষণের জেরে ফুলে-ফেঁপে ওঠা ফুলাহার  এর কারণে বিস্তীর্ণ অঞ্চল প্লাবিত হচ্ছে। সংরক্ষিত এলাকার আমবাগান, চাষের জমি প্লাবিত হয়েছে ।সূর্যপুর  অঞ্চলের মানুষ চূড়ান্ত ক্ষতিগ্রস্থ হচ্ছে। এই জল মরা কালিন্দী নদীতে পড়লেই  রতুয়া বাহালার সহ বিস্তীর্ণ অঞ্চল প্লাবিত হবে। তাই আতংকিত গ্রামবাসীরা ঘর ছেড়ে পালাচ্ছেন।

No comments:

Post a comment