Trending

Wednesday, 3 July 2019

রাস্তা আটকে হানুমান চালিশা পাঠ



বালির ডবসন রোডে রাস্তা আটকে বিজেপি যুব মোর্চার নেতা কর্মীরা হনুমান চালিশা পাঠ করলেন। তাদের এই বিক্ষোভে রাস্তা আটকে নামাজ পড়ার বিরুদ্ধে জুন মাসে তারা প্রতিবাদে রাস্তায় নেমেছিলেন। বালিখাল এর বজরংবালি মন্দিরের সামনে প্রায় 100 বিজেপি কর্মী রাস্তা আটকে হনুমান চালিশা পাঠ করছিলেন।

হাওড়ার বিজেপি যুব মোর্চার সভাপতি ওম প্রকাশ সিং এর দাবি যতদিন না রাস্তা আটকে নামাজ পড়া বন্ধ হচ্ছে, ততদিন আমরাও এর প্রতিবাদে রাস্তা আটকে হনুমান চালিশা পাঠ করবো। কারন রাস্তার আটকে নামাজ পড়ার ফলে আমজনতা দূর্ভোগে পরে। আর জনগণকে দূর্ভোগে ফেলার অধিকার কারো নেই। যদি কারোর ধর্মীয় রীতিনীতি পালন করার থাকে তাহলে সে বাড়িতে গিয়ে সেটা করতে পারে।

তিনি আরো বলেন বাড়ি ছাড়া ধর্মীয় অনুষ্ঠান পালনের জন্য রয়েছে মন্দির ,মসজিদ ,গির্জা। কিন্তু রাস্তা আটকে এমনভাবে ধর্মীয় অনুষ্ঠান পালন করে জনগণকে বিপাকে এর আগে কখনো ফেলা হয়নি। যেদিন থেকে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় বাংলার মুখ্যমন্ত্রী হয়েছেন সেদিন থেকেই তিনি বাংলার সংস্কৃতিকে নষ্ট করে দিয়েছেন। তারই মদতে প্রত্যেক শুক্রবার জি টি রোড আটকে নামাজ পাঠের ব্যবস্থা করা হয়।

আগেও এই ঘটনার প্রতীকী প্রতিবাদ হিসেবে রাস্তা আটকে পাঁচবার হনুমান চালিশা পাঠ করা হয়েছিল। এবারও বিজেপির তরফ থেকে দাবি করা হয় যদি অবিলম্বে জি টি রোড আটকে নামাজ পড়া বন্ধ না হয়, তাহলে প্রত্যেক মঙ্গলবার প্রত্যেকটি হনুমান মন্দির এর সামনে রাস্তা আটকে হনুমান চালিশা পাঠ করা হবে। মঙ্গলবার বিজেপির এই হনুমান চালিশা পাঠ করার জন্য 5 মিনিটের জন্য জি টি রোড বন্ধ হয়ে যায়। প্রবল যানজট সৃষ্টি হয় জিটি রোডে। আবার এদিকে হাওড়া ডবসন রোডে কুড়ি মিনিট রাস্তা আটকে হনুমান চালিশা পাঠ করা হয়। সেখানে ব্যাপক যানজটের সৃষ্টি হয়।

এ বিষয়ে তৃণমূলের মন্ত্রী অরূপ রায়ের বক্তব্য এটি একটি ধর্মীয় নীতি। বিজেপি অযথা ধর্মের মধ্যে রাজনীতি টেনে এনে রাজ্যে বিশৃঙ্খলা সৃষ্টি করতে চাইছে। 

No comments:

Post a comment