Trending

Tuesday, 13 August 2019

অবশেষে গ্রেফতার শিল্পনির্দেশক খুনের আসামি



মোহাম্মদ ফুরকান নামের এক ব্যবসায়ী সহ আরও দু'জনকে গ্রেফতার করল পুলিশ, বলিউডের বাঙালি শিল্পনির্দেশক কৃষ্ণেন্দু চৌধুরীকে খুনের অভিযোগে। শুক্রবার মুম্বাইয়ের বিবরে তার গলা কাটা দেহ উদ্ধার করে পুলিশ। তার দেহে আঘাতের চিহ্ন রয়েছে। পশ্চিমবঙ্গের হুগলি জেলার কোন্নগর এর  মাস্টার পাড়ার বাসিন্দা কৃষ্ণেন্দু চৌধুরি কর্মসূত্রে থাকতেন মুম্বাইয়ের গোরেগাঁও।

জানা গিয়েছে এই ফুরকান কৃষ্ণেন্দু কে শিল্প সামগ্রী সরবরাহ করতো ।প্রাথমিক তদন্তে নেমে পুলিশের সন্দেহ ব্যবসায়ীক শত্রুতার জেরে পূর্ব পরিকল্পনা মতো তাকে খুন করা হয়েছে। ঘটনার দুদিন আগে ফুরকান একটি ছুরি কিনেছিল। খুন এবং দেহ লোপাটের সঙ্গে জড়িত ছিল ফুরকান সহ ওই দুই ব্যবসায়ী।

2008 সালে মুম্বাই যান কলকাতার ইন্ডিয়ান আর্ট কলেজের ছাত্র কৃষ্ণেন্দু চৌধুরি। প্রথমে তিনি প্রোডাকশন ডিজাইনের সংস্থায় চাকরি করতেন। তারপর নিজেই একটি সংস্থা খোলেন। 2015 সালে আইল্যান্ড সিটি নামে একটি ছবিতে তিনি শিল্প নির্দেশক হিসেবে কাজ করেছিলেন। এছাড়া তিন বছর আগে যৌথভাবে অন্য একটি ছবিতে তিনি কাজ করেন শিল্পী বন্ধু চিন্ময় মন্ডলের সঙ্গে। চিন্ময় পুলিশকে জানিয়েছে 7ই আগস্ট রাত আটটার সময় কৃষ্ণেন্দুর সঙ্গে তাঁর শেষ কথা হয় ।কৃষ্ণেন্দু তাকে জানায় তার একটি মিটিংয়ে যাবার কথা আছে। ধৃত মহম্মদ ফুরকানকে চিন্ময় খুব ভালোভাবে চিনতেন। চিন্ময় পুলিশকে আরো জানায় ফুরকান এর কাছে তারা 85 হাজার টাকা পেতেন। তবে তার ধারণা শুধুমাত্র টাকা নয়, সংস্থার ল্যাপটপটি হাতানোর জন্যই ফুরকান এই কাজ করেছে। কারণ ফুরকান এর ধারণা ছিল ল্যাপটপ হাতাতে পারলেই তাদের সমস্ত শিল্পের নকশা সে পেয়ে যাবে।

এদিকে নিজেদের আড়াল করতে ফুরকান আরো তিনজন কে সঙ্গে নিয়ে কৃষ্ণেন্দুর নিখোঁজ হওয়ার  কথা প্রথম পুলিশকে জানায়। কৃষ্ণেন্দুর মামাতো ভাই দিব্যেন্দু সরকার দেহ সনাক্ত করেন। জানা গেছে কুপিয়ে খুন করা হয়েছে কৃষ্ণেন্দু চৌধুরি কে। প্রথম থেকেই ফুরকান পুলিশকে বিভ্রান্ত করার চেষ্টা করছিল। তারপরে তাকে চেপে জেরা করাতেই অসংলগ্ন কথা বলতে থাকে সে ।অবশেষে পুলিশের জেরার মুখে নিজের দোষ স্বীকার করে ফুরকান।

No comments:

Post a Comment