Trending

Tuesday, 27 August 2019

উদ্দাম জীবনযাপনের বাধা, নিজের মাকে খুন করল মেয়ে



মেয়ে জামাইয়ের মদ খেয়ে বাড়ি ফেরা এবং উদ্দাম জীবনযাপন পছন্দ ছিল না বাবা মায়ের। তাই বাবা-মাকে খুন করার পরিকল্পনা করলো মেয়ে। বাবাকে খুন করতে না পারলেও মাকে খুন করে দেহ লোপাটের চেষ্টা করে। পর্ণশ্রী থানা এলাকার বাসুদেবপুরের বকুলতলার বাসিন্দা শম্পা চক্রবর্তী (৪৭) কে নিজের মেয়ের হাতে প্রাণ দিতে হলো।

 স্থানীয় সূত্রে জানা গিয়েছে তিনি এবং তার স্বামী ভূপাল চক্রবর্তী মেয়ে জামাইয়ের উদ্দাম জীবনযাপনের বাধা দিতেন। তাদের বেলাগাম জীবনযাপন পছন্দ ছিল না তাদের।এমনকি মেয়ে-জামাই অনেক সময় তাদের কাছে টাকা চেয়ে অশান্তিও করত। এর আগেও একবার ঘুমের ওষুধ খাইয়ে তাদের মারার চেষ্টা করেছিল মেয়ে।

রোববার সকালে বিছানা চাদরে মোড়া একটি মৃতদেহ উদ্ধার করে পুলিশ।চাদর  খুলতেই দেখা যায় মহিলার গলাকাটা এবং একটি প্লাস্টিক দিয়ে মুখটি বাঁধা আছে। তার পাশেই পড়েছিল একটি ট্রলি ব্যাগ।ঘটনার পরই পর্ণশ্রী থানার পুলিশ মৃতার মেয়ে জামাইকে গ্রেপ্তার করে।

স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে শম্পা চক্রবর্তীকে গলা কেটে খুন করে।তার দেহ লোপাটের চেষ্টা করেছিল মেয়েজামাই। রাস্তায় যেখানে তার দেহটি পড়েছিল তার উল্টো দিকে ফ্ল্যাটে থাকতেন তারা। নিরাপত্তা কর্মী তার স্বামী ভূপাল চক্রবর্তীসেখানেই থাকেন ।মাঝেমধ্যে মেয়েজামাই ওই ফ্ল্যাটে আসতো।শনিবার গভীর রাতে ওই বাড়ি থেকে চিৎকার-চেঁচামেচি শোনা গেছে। এমনকি মেয়ে জামাইকে বাড়ি থেকে বের হতে দেখা গেছে।

জয়েন সিপি ক্রাইম মূর্লিধার শর্মা জানিয়েছিলেন যে, মৃতদেহটি বিছানা চাদরে মোড়া ছিল। সে বিছানার চাদরটি ওই বাড়ির। ঘরটি তালা বন্ধ করা ছিল।পুলিশ গিয়ে তালা ভেঙে ঘরে ঢুকে সেখান থেকে একটি রক্তমাখা ছুরি উদ্ধার করে।

আরো জানা গেছে রোববার ভোরে এক মহিলা দেখেন এক ব্যক্তি সাইকেলের পিছনে পড়ে চাদরে মোড়া কিছু একটা জিনিস নিয়ে যাচ্ছেন।হঠাৎ সেটি পড়ে যায়।লোকটি  সাইকেল নিয়ে পালিয়ে যায়।এ সময় একজন মহিলাকে তার চারপাশে ঘোরাঘুরি করতে দেখা গেছে ।এক প্রত্যক্ষদর্শী পুরো ঘটনা ভিডিও তুলে রাখেন।পুলিশ এসে দেহটি ময়নাতদন্ত পাঠিয়েছে

No comments:

Post a comment